মেনু নির্বাচন করুন

মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজরিত স্থান ফুকরা (ফুকরার যুদ্ধ)

ফুকরা কাশিযানী উপজেলার মধুমতি নদীবিধৌত একটি স্থান। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের সাথে ফুকরার রয়েছে গভীর সম্পর্ক। কাশিয়ানীকে পাকসেনামুক্ত রাখতে ওড়াকান্দিতে প্রধান ক্যাম্প স্থাপন করা হয়। মধুমতি নদীর তীরবর্তী রাতইলে স্থাপন করা হয় সাবহেড কোয়ার্টার ক্যাম্প। ফুকরা এম.এম একাডেমীতে অবস্থান নেয় মুক্তিসেনারা। ভাটিয়াপাড়া ওয়ারলেস স্টেশনে স্থাপিত পাক সেনাঘাটি থেকে মধুমতি নদীপথে টহল দিত পাক সেনারা। তীরস্থ ঘরবাড়ি, জানমালের ওপর চালাতে থাকে নির্মম নির্যাতন। এলাকার মুক্তিকামী জনতা তা প্রতিহত করার নীল নকশা তৈরি করে ফেলে নিমিষেই। জুন-জুলাইয়ের দিকে মধুমতি নদীর ফুকরা ঘাটে টহলরত পাকসেনাদের গানবোটে বাধা সৃষ্টি করে কটা সর্দার ও ফেলু সর্দার নামের দুজন সাহসী মুক্তিযোদ্ধা। মুহুর্তের মধ্যে খবর ছড়িয়ে পড়ে ওড়াকান্দি হেড কোয়াটারসহ রাতইল সাবহেড কোয়াটার ক্যাম্পে। যুদ্ধের প্রস্তুতি নিয়ে এগিয়ে আসে ফুকরা স্কুলে অবসস্থানরত মুক্তিবাহিনী। মুক্তিকামী মানুষের সাথে পাক সেনাদের প্রচন্ড যুদ্ধ হয়। পিছু হটতে বাধ্য হয় পাক সেনারা। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে এটাই ফুকরার যুদ্ধ নামে খ্যাত।

 

কিভাবে যাওয়া যায়:

উপজেলা সদর হতে দক্ষিণ দিকে ০৩ কিঃ মিঃ অগ্রসর হয়ে ভাটিয়াপাড়া চৌরাস্তা ওখান থেকে মহাসড়ক হয়ে রাতইল ইউনিয়নের মধ্য দিয়ে ফুকরা বাজার । বাজার হতে সামান্য দূরে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজরিত স্থান ফুকরা


Share with :

Facebook Twitter